ঢাকা , মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
৮ সিন্দুক ২৩ বস্তা

পাগলা মসজিদে মিলল রেকর্ড ৫ কোটি ৭৮ লাখ টাকা

অবশেষে কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদের দানসিন্দুকে পাওয়া ২৩ বস্তা টাকা গণনা শেষ হয়েছে।

আজ শনিবার (১৯ আগষ্ট) সকাল সাড়ে ৮টা থেকে শুরু হয়ে রাত সাড়ে ৯টায় অর্থাৎ ১৩ ঘণ্টা গণনা শেষে মোট টাকা মিলেছে ৫ কোটি ৭৮ লাখ ৯ হাজার ৩২৫ টাকা। এটা এযাবৎকালের সর্বোচ্চ রেকর্ড। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে আজ সকাল সাড়ে আটটার দিকে আটটি সিন্দুক খোলা হয়। দুপুর ১২টার মধ্যে গণনা শেষ করে রূপালী ব্যাংকের ভল্টে পাঠানো হয় তিন কোটি টাকা। রূপালী ব্যাংকের সহকারী মহাব্যবস্থাপক (এজিএম) রফিকুল ইসলাম বলেন, প্রথমে বড় বড় ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট গণনা করা হয়েছে। এর পর অপেক্ষাকৃত ছোট নোট গণনা করা হয়।

জেলা শহরের নরসুন্দা নদী তীরের ঐতিহাসিক মসজিদটিতে আটটি লোহার দানসিন্দুক আছে। তিন থেকে পাঁচ মাস পরপর এই সিন্দুক খোলা হয়। এবার প্রায় সাড়ে তিন মাসের মাথায় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ ও পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রাসেল শেখের নেতৃত্বে মসজিদের আটটি দানসিন্দুক খোলা হয়। এ সময় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও দানবাক্স খোলা কমিটির আহ্বায়ক কাজী মহুয়া মমতাজ ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) এ টি এম ফরহাদ চৌধুরী, রূপালী ব্যাংকের সহকারী মহাব্যবস্থাপক (এজিএম) রফিকুল ইসলাম, মসজিদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা শওকত উদ্দিন ভূঁইয়া, মসজিদ কমিটির সদস্য আনোয়ার কামালসহ অন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রথমে টাকাগুলো লোহার সিন্ধুক থেকে বস্তায় ভরা হয়। পরে মেঝেতে ঢালা হয়। এরপর শুরু হয় গণনার কাজ। মাদ্রাসার প্রায় দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী, ব্যাংকের অর্ধশত কর্মী এবং মসজিদ কমিটি ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মিলে প্রায় আড়াই শ লোক টাকা গণনা করেন।

৮ সিন্দুক ২৩ বস্তা

পাগলা মসজিদে মিলল রেকর্ড ৫ কোটি ৭৮ লাখ টাকা

আপডেট সময় ১০:৫৩:৫৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৯ অগাস্ট ২০২৩

অবশেষে কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদের দানসিন্দুকে পাওয়া ২৩ বস্তা টাকা গণনা শেষ হয়েছে।

আজ শনিবার (১৯ আগষ্ট) সকাল সাড়ে ৮টা থেকে শুরু হয়ে রাত সাড়ে ৯টায় অর্থাৎ ১৩ ঘণ্টা গণনা শেষে মোট টাকা মিলেছে ৫ কোটি ৭৮ লাখ ৯ হাজার ৩২৫ টাকা। এটা এযাবৎকালের সর্বোচ্চ রেকর্ড। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে আজ সকাল সাড়ে আটটার দিকে আটটি সিন্দুক খোলা হয়। দুপুর ১২টার মধ্যে গণনা শেষ করে রূপালী ব্যাংকের ভল্টে পাঠানো হয় তিন কোটি টাকা। রূপালী ব্যাংকের সহকারী মহাব্যবস্থাপক (এজিএম) রফিকুল ইসলাম বলেন, প্রথমে বড় বড় ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট গণনা করা হয়েছে। এর পর অপেক্ষাকৃত ছোট নোট গণনা করা হয়।

জেলা শহরের নরসুন্দা নদী তীরের ঐতিহাসিক মসজিদটিতে আটটি লোহার দানসিন্দুক আছে। তিন থেকে পাঁচ মাস পরপর এই সিন্দুক খোলা হয়। এবার প্রায় সাড়ে তিন মাসের মাথায় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ ও পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রাসেল শেখের নেতৃত্বে মসজিদের আটটি দানসিন্দুক খোলা হয়। এ সময় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও দানবাক্স খোলা কমিটির আহ্বায়ক কাজী মহুয়া মমতাজ ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) এ টি এম ফরহাদ চৌধুরী, রূপালী ব্যাংকের সহকারী মহাব্যবস্থাপক (এজিএম) রফিকুল ইসলাম, মসজিদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা শওকত উদ্দিন ভূঁইয়া, মসজিদ কমিটির সদস্য আনোয়ার কামালসহ অন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রথমে টাকাগুলো লোহার সিন্ধুক থেকে বস্তায় ভরা হয়। পরে মেঝেতে ঢালা হয়। এরপর শুরু হয় গণনার কাজ। মাদ্রাসার প্রায় দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী, ব্যাংকের অর্ধশত কর্মী এবং মসজিদ কমিটি ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মিলে প্রায় আড়াই শ লোক টাকা গণনা করেন।