ঢাকা , মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নতুন রুশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেলোসভ সম্পর্কে যা জানা গেলো

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন নতুন একজন প্রতিরক্ষামন্ত্রীর নাম প্রস্তাব করেছেন। তিনি হলেন বেসামরিক ব্যক্তি আন্দ্রেই বেলোসভ। সাবেক একজন উপ-প্রধানমন্ত্রী বেলোসভ অর্থনীতি বিশেষজ্ঞ। ক্রেমলিনের তথ্য মতে, দুই বছরের বেশি সময় সময় উপ-প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে রয়েছেন তিনি।

পুতিন তার দীর্ঘদিনের মিত্র সের্গেই শোইগুকে প্রতিরক্ষামন্ত্রীর পদ থেকে সরিয়ে দিয়েছেন। তার জায়গায় ভারপ্রাপ্ত প্রথম উপ-প্রধানমন্ত্রী আন্দ্রেই বেলোসভকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

গতকাল রবিবার (১২ মে) রাতে ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ জানান, প্রেসিডেন্টের এক ডিক্রির মাধ্যমে এমন ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

১৯৮১ সালে মস্কো স্টেট ইউনিভার্সিটি থেকে মর্যাদার সঙ্গে অর্থনীতি বিভাগ থেকে স্নাতক পাস করেছেন বর্তমানে ৬৫ বছর বয়সী বেলোসভ। তার পুরো নাম হলো আন্দ্রেই রেমোভিচ বেলোসভ।

২০১২ সালে তাকে অর্থমন্ত্রী করা হয়। ২০১৩ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত বেলোসভ রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা ছিলেন। ২০২০ সাল থেকে তিনি প্রথম উপ-প্রধানমন্ত্রী হিসেবে কাজ শুরু করেন। ২০২০ সালে প্রধানমন্ত্রী মিখাইল মিশুস্তিন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে স্বল্প সময়ের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

২০১৭ সালে রুশ সংবাদমাধ্যম আরবিসি’র প্রতিবেদন অনুসারে, ডিজিটাল অর্থনীতি ও ব্লকচেইন যে ভবিষ্যতের জন্য গুরুত্বপূর্ণ, তা পুতিনকে যে কয়জন কর্মকর্তা বুঝিয়েছেন, তাদের একজন হলেন বেলোসভ।

২০২৩ সালে আরবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এই রুশ কর্মকর্তা বলেছিলেন, আমি বলতে পারি যে, সার্বভৌমত্ব থাকা একটি দেশের তাৎপর্য অবশ্যই নিজের অধিকারে থাকা উচিত। আমরা কে, আমরা কোথা থেকে এসেছি, কোথায় যাচ্ছি?… এটি অর্জন বা পরিচয়ের পুনর্জন্ম ছাড়া আমাদের দেশের বিকল্প নেই।

আরবিসির মতে, তরুণ বয়সে তিনি সাম্বো ও কারাতে চর্চা করেছেন। কিন্তু সেনাবাহিনীতে কখনও যোগ দেননি। তাকে পুতিনের ঘনিষ্ঠ বলে মনে করা হয়।

বেলোসভ সম্পর্কে ক্রেমলিন মুখপাত্র বলেছেন, একজন বেসামরিক অর্থনীতিবিদকে প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেওয়া নিঃসন্দেহে নতুন আবিষ্কার।

রাশিয়ার অর্থনীতিকে চলমান যুদ্ধের প্রচেষ্টার সাথে আরও ঘনিষ্ঠভাবে একতাবদ্ধ করতেই পুতিনের এই উদ্যোগ বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। টানা দুই বছর ধরে চলমান ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে রাশিয়ার অর্থনীতি এখন বেশ বেকায়দায় রয়েছে। যুদ্ধে অর্থায়নের জন্যও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের পর্যাপ্ত বাজেট থাকা দরকার, এটাও একটা কারণ হতে পারে বলে ধারণা করছেন বিশ্লেষকরা।

নতুন রুশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেলোসভ সম্পর্কে যা জানা গেলো

আপডেট সময় ০৫:৩৩:৫১ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ মে ২০২৪

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন নতুন একজন প্রতিরক্ষামন্ত্রীর নাম প্রস্তাব করেছেন। তিনি হলেন বেসামরিক ব্যক্তি আন্দ্রেই বেলোসভ। সাবেক একজন উপ-প্রধানমন্ত্রী বেলোসভ অর্থনীতি বিশেষজ্ঞ। ক্রেমলিনের তথ্য মতে, দুই বছরের বেশি সময় সময় উপ-প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে রয়েছেন তিনি।

পুতিন তার দীর্ঘদিনের মিত্র সের্গেই শোইগুকে প্রতিরক্ষামন্ত্রীর পদ থেকে সরিয়ে দিয়েছেন। তার জায়গায় ভারপ্রাপ্ত প্রথম উপ-প্রধানমন্ত্রী আন্দ্রেই বেলোসভকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

গতকাল রবিবার (১২ মে) রাতে ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ জানান, প্রেসিডেন্টের এক ডিক্রির মাধ্যমে এমন ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

১৯৮১ সালে মস্কো স্টেট ইউনিভার্সিটি থেকে মর্যাদার সঙ্গে অর্থনীতি বিভাগ থেকে স্নাতক পাস করেছেন বর্তমানে ৬৫ বছর বয়সী বেলোসভ। তার পুরো নাম হলো আন্দ্রেই রেমোভিচ বেলোসভ।

২০১২ সালে তাকে অর্থমন্ত্রী করা হয়। ২০১৩ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত বেলোসভ রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা ছিলেন। ২০২০ সাল থেকে তিনি প্রথম উপ-প্রধানমন্ত্রী হিসেবে কাজ শুরু করেন। ২০২০ সালে প্রধানমন্ত্রী মিখাইল মিশুস্তিন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে স্বল্প সময়ের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

২০১৭ সালে রুশ সংবাদমাধ্যম আরবিসি’র প্রতিবেদন অনুসারে, ডিজিটাল অর্থনীতি ও ব্লকচেইন যে ভবিষ্যতের জন্য গুরুত্বপূর্ণ, তা পুতিনকে যে কয়জন কর্মকর্তা বুঝিয়েছেন, তাদের একজন হলেন বেলোসভ।

২০২৩ সালে আরবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এই রুশ কর্মকর্তা বলেছিলেন, আমি বলতে পারি যে, সার্বভৌমত্ব থাকা একটি দেশের তাৎপর্য অবশ্যই নিজের অধিকারে থাকা উচিত। আমরা কে, আমরা কোথা থেকে এসেছি, কোথায় যাচ্ছি?… এটি অর্জন বা পরিচয়ের পুনর্জন্ম ছাড়া আমাদের দেশের বিকল্প নেই।

আরবিসির মতে, তরুণ বয়সে তিনি সাম্বো ও কারাতে চর্চা করেছেন। কিন্তু সেনাবাহিনীতে কখনও যোগ দেননি। তাকে পুতিনের ঘনিষ্ঠ বলে মনে করা হয়।

বেলোসভ সম্পর্কে ক্রেমলিন মুখপাত্র বলেছেন, একজন বেসামরিক অর্থনীতিবিদকে প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেওয়া নিঃসন্দেহে নতুন আবিষ্কার।

রাশিয়ার অর্থনীতিকে চলমান যুদ্ধের প্রচেষ্টার সাথে আরও ঘনিষ্ঠভাবে একতাবদ্ধ করতেই পুতিনের এই উদ্যোগ বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। টানা দুই বছর ধরে চলমান ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে রাশিয়ার অর্থনীতি এখন বেশ বেকায়দায় রয়েছে। যুদ্ধে অর্থায়নের জন্যও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের পর্যাপ্ত বাজেট থাকা দরকার, এটাও একটা কারণ হতে পারে বলে ধারণা করছেন বিশ্লেষকরা।