ঢাকা , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

লক্ষ্য পূরণ না হওয়া পর্যন্ত গাজায় যুদ্ধ শুরু করার অনুমতি চেয়েছেন ইসরাইল

গাজায় ইসরাইলের যুদ্ধবিরতি কার্যকর করতে কাতার এবং মিশরের মধ্যস্ততায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে যুদ্ধবিরতি কার্যকর করেছিল হামাস। তবে সেটি আজও কার্যকর হয়নি। এর মধ্যে ফের নিজেদের লক্ষ্য পূরণ না হওয়া পর্যন্ত পুনরায় গাজায় যুদ্ধ শুরু কারার অনুমতি চেয়েছেন ইসরাইল প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু।

রোববার যুদ্ধবিরতি চুক্তি নিয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করে নেতানিয়াহু বলেন, নয় মাস পুরনো যুদ্ধের অবসানের লক্ষ্যে মার্কিন পরিকল্পনা নিয়ে পুনরায় আলোচনা শুরু হবে। এর লক্ষ্য যুদ্ধের স্থায়ী অবসান ঘটানো এবং গাজায় আটক প্রায় ১২০ ইসরাইলি জিম্মিকে মুক্ত করা।

ইসরাইলের যুদ্ধ বিরতির প্রতিশ্রুতি নিয়ে হামাসের এক সূত্র রয়টার্সকে জানিয়েছে, ইসরাইল যুদ্ধ বিরতির চুক্তিতে স্বাক্ষর করার আগে মৌখিকভাবে স্থায়ী যুদ্ধবিরতির প্রতিশ্রুত দিয়েছিল। আর এখন সেই আলোচনার ৬ সপ্তাহপর তারা বলছে ফের যুদ্ধের অনুমতি দেবে।

যুদ্ধবিরতির কার্যকর করতে নতুন করে নেতানিয়াহু চারচি দাবি জানিয়েছেন, যার মধ্যে আছে, ইসরাইলের যুদ্ধের লক্ষ্য পূরণ না হওয়া পর্যন্ত, যুদ্ধ পুনরায় শুরু করতে বাধা দেওয়া যাবে না। হামাসের সামরিক এবং শাসন ক্ষমতাকে ধ্বংস করার পাশাপাশি জিম্মিদের ফিরিয়ে দিতে হবে। গাজা-মিশর সীমান্ত দিতে হামাসের কাছে যেকোনো ধরনের অস্ত্র পাচার নিষিদ্ধ করতে হবে। সেই সঙ্গে হাজার হাজার সশস্ত্র জঙ্গিদের উত্তর গাজায় ফিরে যাওয়ার অনুমতি দেবে না তারা।

এ বিষয়ে নেতানিয়াহু বলেন, ‘ইসরাইল যে পরিকল্পনায় সম্মত হয়েছে সেটাকে প্রেসিডেন্ট বাইডেন স্বাগত জানিয়েছেন। আর সেটি হলে যুদ্ধের অন্যান্য উদ্দেশ্য লঙ্ঘন না করেই জিম্মিদের ফেরত দেওয়ার অনুমতি দেবে ইসরাইল।’

লক্ষ্য পূরণ না হওয়া পর্যন্ত গাজায় যুদ্ধ শুরু করার অনুমতি চেয়েছেন ইসরাইল

আপডেট সময় ১১:৩১:৩৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৮ জুলাই ২০২৪

গাজায় ইসরাইলের যুদ্ধবিরতি কার্যকর করতে কাতার এবং মিশরের মধ্যস্ততায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে যুদ্ধবিরতি কার্যকর করেছিল হামাস। তবে সেটি আজও কার্যকর হয়নি। এর মধ্যে ফের নিজেদের লক্ষ্য পূরণ না হওয়া পর্যন্ত পুনরায় গাজায় যুদ্ধ শুরু কারার অনুমতি চেয়েছেন ইসরাইল প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু।

রোববার যুদ্ধবিরতি চুক্তি নিয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করে নেতানিয়াহু বলেন, নয় মাস পুরনো যুদ্ধের অবসানের লক্ষ্যে মার্কিন পরিকল্পনা নিয়ে পুনরায় আলোচনা শুরু হবে। এর লক্ষ্য যুদ্ধের স্থায়ী অবসান ঘটানো এবং গাজায় আটক প্রায় ১২০ ইসরাইলি জিম্মিকে মুক্ত করা।

ইসরাইলের যুদ্ধ বিরতির প্রতিশ্রুতি নিয়ে হামাসের এক সূত্র রয়টার্সকে জানিয়েছে, ইসরাইল যুদ্ধ বিরতির চুক্তিতে স্বাক্ষর করার আগে মৌখিকভাবে স্থায়ী যুদ্ধবিরতির প্রতিশ্রুত দিয়েছিল। আর এখন সেই আলোচনার ৬ সপ্তাহপর তারা বলছে ফের যুদ্ধের অনুমতি দেবে।

যুদ্ধবিরতির কার্যকর করতে নতুন করে নেতানিয়াহু চারচি দাবি জানিয়েছেন, যার মধ্যে আছে, ইসরাইলের যুদ্ধের লক্ষ্য পূরণ না হওয়া পর্যন্ত, যুদ্ধ পুনরায় শুরু করতে বাধা দেওয়া যাবে না। হামাসের সামরিক এবং শাসন ক্ষমতাকে ধ্বংস করার পাশাপাশি জিম্মিদের ফিরিয়ে দিতে হবে। গাজা-মিশর সীমান্ত দিতে হামাসের কাছে যেকোনো ধরনের অস্ত্র পাচার নিষিদ্ধ করতে হবে। সেই সঙ্গে হাজার হাজার সশস্ত্র জঙ্গিদের উত্তর গাজায় ফিরে যাওয়ার অনুমতি দেবে না তারা।

এ বিষয়ে নেতানিয়াহু বলেন, ‘ইসরাইল যে পরিকল্পনায় সম্মত হয়েছে সেটাকে প্রেসিডেন্ট বাইডেন স্বাগত জানিয়েছেন। আর সেটি হলে যুদ্ধের অন্যান্য উদ্দেশ্য লঙ্ঘন না করেই জিম্মিদের ফেরত দেওয়ার অনুমতি দেবে ইসরাইল।’