ঢাকা , মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে মধ্যরাতে সম্পাদকের বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলা, নগদ টাকা-স্বর্ণালংকার লুট

চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় চট্টগ্রাম প্রতিদিন পত্রিকার সম্পাদক হোসাইন তৌফিক ইফতেখার এর গ্রামের বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলা ও দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) গভীর রাতে চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার মাদার্শা ইউনিয়নে বাড়ির দেয়াল টপকে জানালার গ্রিল কেটে ঘরে ঢুকে কেয়ারটেকারকে বেঁধে ফেলে।পরে তারা স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকাসহ মূল্যবান মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।

সাংবাদিক হোসাইন তৌফিক ইফতিখার বলেন,’বুধবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে দেয়াল টপকে ছয়জন সংঘবদ্ধ সন্ত্রাসী জানালার গ্রিল কেটে আমার বাড়িতে ঢুকে।ঘরে ঢুকেই তারা অস্ত্রের মুখে বাড়ির কেয়ারটেকারের হাত-পা বেঁধে ফেলে।

এ সময় ১৮ থেকে ২০ বছর বয়সী ওই ছয় সন্ত্রাসীর মুখ কালো মুখোশে ঢাকা ছিল।এসময় তারা ‘সাংবাদিক তৌফিক কোন্ রুমে আছে’ সেটা জানতে চায়। কেয়ারটেকার বাড়ির সদস্যদের সবাই চট্টগ্রাম শহরে চলে গেছেন জানালে সন্ত্রাসীরা বাড়ির প্রতিটি কক্ষ তল্লাশি করে।এসময় আলমারিতে থাকা এক ভরি স্বর্ণ,নগদ ৪০ হাজার টাকা ছাড়াও বিভিন্ন মূল্যবান জিনিসপত্র লুট করে নিয়ে যায়।’ ঘটনার পর সাতকানিয়া থানার একজন উপপরিদর্শক ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান।এ ঘটনায় অভিযোগ দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

সাতকানিয়া উপজেলায় সাম্প্রতিক সময়ে উদ্বেগজনক হারে বেড়েছে হামলা,ডাকাতি-দস্যুতা ও লুটপাটের ঘটনা।

এর আগে গত ৮ এপ্রিল রাত ১০টার দিকে পার্শ্ববর্তী এওচিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম গাটিয়াডেঙ্গা নেয়ামত আলী পাড়ায় সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় একই পরিবারের দিলুয়ারা বেগম (৫৫),আবুল হাসেম (৬৫), মনোয়ারা বেগম (৫০) ও সিফাতুল ইসলাম (২৪) নামে একই পরিবারের চার সদস্য গুলিবিদ্ধ হন।এ সময় পুরো এলাকায় নেমে আসে আতঙ্ক। বুধবার (১৭ এপ্রিল) রাতে সাতকানিয়ার খাগরিয়া ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ড জলদাস পাড়া রাধাকৃষ্ণ মন্দির এলাকায় বাসন্তী পূজা চলাকালে প্রতিমা ভাংচুরের অভিযোগ উঠেছে।দুর্বৃত্তদের হামলায়

ওই এলাকার সহদেব জলদাসের স্ত্রী কৃষ্ণা জলদাস (৩২),অর্জুন জলদাসের ছেলে সুজন জলদাস (২৫) ও তাঁর ভাই শিপন জলদাস (১৭)নামে তিন ব্যক্তি আহত হয়। আহতরা পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নেন।

আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির এমন চরম অবনতি ঘটলেও মূল অপরাধীরা থেকে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে।এজন্য পুলিশের নিষ্ক্রিয়তাকেই দায়ী করছেন এলাকাবাসী। দীর্ঘদিন ধরে অভিযোগ রয়েছে,এসব ঘটনায় সাতকানিয়া থানার পুলিশ হামলা ও ডাকাতির মামলাও নিতে চায় না। ভুক্তভোগীরা মামলা করতে গেলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তাদেরকে মামলা না নিয়ে ফিরিয়ে দেওয়া হয়।

চট্টগ্রামে মধ্যরাতে সম্পাদকের বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলা, নগদ টাকা-স্বর্ণালংকার লুট

আপডেট সময় ১০:৪১:৫০ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪

চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় চট্টগ্রাম প্রতিদিন পত্রিকার সম্পাদক হোসাইন তৌফিক ইফতেখার এর গ্রামের বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলা ও দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) গভীর রাতে চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার মাদার্শা ইউনিয়নে বাড়ির দেয়াল টপকে জানালার গ্রিল কেটে ঘরে ঢুকে কেয়ারটেকারকে বেঁধে ফেলে।পরে তারা স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকাসহ মূল্যবান মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।

সাংবাদিক হোসাইন তৌফিক ইফতিখার বলেন,’বুধবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে দেয়াল টপকে ছয়জন সংঘবদ্ধ সন্ত্রাসী জানালার গ্রিল কেটে আমার বাড়িতে ঢুকে।ঘরে ঢুকেই তারা অস্ত্রের মুখে বাড়ির কেয়ারটেকারের হাত-পা বেঁধে ফেলে।

এ সময় ১৮ থেকে ২০ বছর বয়সী ওই ছয় সন্ত্রাসীর মুখ কালো মুখোশে ঢাকা ছিল।এসময় তারা ‘সাংবাদিক তৌফিক কোন্ রুমে আছে’ সেটা জানতে চায়। কেয়ারটেকার বাড়ির সদস্যদের সবাই চট্টগ্রাম শহরে চলে গেছেন জানালে সন্ত্রাসীরা বাড়ির প্রতিটি কক্ষ তল্লাশি করে।এসময় আলমারিতে থাকা এক ভরি স্বর্ণ,নগদ ৪০ হাজার টাকা ছাড়াও বিভিন্ন মূল্যবান জিনিসপত্র লুট করে নিয়ে যায়।’ ঘটনার পর সাতকানিয়া থানার একজন উপপরিদর্শক ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান।এ ঘটনায় অভিযোগ দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

সাতকানিয়া উপজেলায় সাম্প্রতিক সময়ে উদ্বেগজনক হারে বেড়েছে হামলা,ডাকাতি-দস্যুতা ও লুটপাটের ঘটনা।

এর আগে গত ৮ এপ্রিল রাত ১০টার দিকে পার্শ্ববর্তী এওচিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম গাটিয়াডেঙ্গা নেয়ামত আলী পাড়ায় সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় একই পরিবারের দিলুয়ারা বেগম (৫৫),আবুল হাসেম (৬৫), মনোয়ারা বেগম (৫০) ও সিফাতুল ইসলাম (২৪) নামে একই পরিবারের চার সদস্য গুলিবিদ্ধ হন।এ সময় পুরো এলাকায় নেমে আসে আতঙ্ক। বুধবার (১৭ এপ্রিল) রাতে সাতকানিয়ার খাগরিয়া ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ড জলদাস পাড়া রাধাকৃষ্ণ মন্দির এলাকায় বাসন্তী পূজা চলাকালে প্রতিমা ভাংচুরের অভিযোগ উঠেছে।দুর্বৃত্তদের হামলায়

ওই এলাকার সহদেব জলদাসের স্ত্রী কৃষ্ণা জলদাস (৩২),অর্জুন জলদাসের ছেলে সুজন জলদাস (২৫) ও তাঁর ভাই শিপন জলদাস (১৭)নামে তিন ব্যক্তি আহত হয়। আহতরা পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নেন।

আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির এমন চরম অবনতি ঘটলেও মূল অপরাধীরা থেকে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে।এজন্য পুলিশের নিষ্ক্রিয়তাকেই দায়ী করছেন এলাকাবাসী। দীর্ঘদিন ধরে অভিযোগ রয়েছে,এসব ঘটনায় সাতকানিয়া থানার পুলিশ হামলা ও ডাকাতির মামলাও নিতে চায় না। ভুক্তভোগীরা মামলা করতে গেলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তাদেরকে মামলা না নিয়ে ফিরিয়ে দেওয়া হয়।